এক সাম্প্রতিক তর্ক এবং ফারাকের দর্শনের প্রথম ক্লাসের অডিও : শুরুয়াতের পুনরাবৃত্তি কীভাবে?

আদর্শ পোস্ট ফরম্যাট

শমীক সরকার

‘লিস্ট’ প্রশ্নে মেয়েদের আন্দোলন যারা করে তাদের নিজেদের মধ্যে প্রকাশ্যে বিবাদ হচ্ছে। আরো স্পষ্ট করে বললে, মেয়েদের আন্দোলনের মধ্যে যে নারীবাদী ধারা, তাদের নিজেদের মধ্যে প্রকাশ্যে বিবাদ হচ্ছে। প্রকাশ্যে মানে ফেসবুকে প্রকাশ্যে। বিবাদ প্রায় এই জায়গায় পৌঁছেছে যে পোড় খাওয়া দীর্ঘদিনের নারীবাদী কর্মীরাও যখন অনেক ভেবেচিন্তে শব্দচয়ন করে অত্যন্ত সঠিক লেখা লিখছেন, তখন পারস্পরিক বিশ্বাসের দীর্ঘমেয়াদী সমাপ্তি বোঝাতে গিয়ে “অ্যানিহিলেশন অফ মিউচুয়াল ট্রাস্ট” লিখছেন। জানিনা, এই অ্যানিহিলেশন শব্দের ব্যবহার কেবল “সাবর্ণ” খোঁটা খাওয়ার প্রত্যুত্তরে বাবাসাহেবের স্মৃতিতে উৎসর্গীকৃত কিনা, নাকি এর বামপন্থী উৎসও রয়েছে, কারণ এই নারীবাদী কর্মীরা বামপন্থীও বটে।

বিবাদের সূত্রপাত পোড় খাওয়া নারীবাদী কর্মীদের ‘লিস্ট’-কে ‘উইথড্র’ করার আবেদন জানিয়ে একটি বিবৃতি। বিবৃতি-তে আরো কিছু কথা বলা ছিল, কিন্তু যে ক্যাম্পেন-টা ‘লিস্ট’ প্রকাশ করা-টাই, তাকে যদি বলা হয় ‘লিস্ট’ উইথড্র করো, তাহলে বলে দেওয়া হলো, ক্যাম্পেন-টাই তুলে নাও। ফলে ‘লিস্ট’ ক্যাম্পেনের মানুষদের রেগে আগুন হয়ে যাওয়া স্বাভাবিক। মানছি, ‘লিস্ট’-এ বেশিরভাগ নাম উচ্চশিক্ষার অঙ্গনে থাকা ঘোষিতভাবে নারীবাদী (বা নারীবাদের প্রতি সহানুভূতি সম্পন্ন) জন্মগতভাবে পুরুষদেরই, এবং হতে পারে সেটা ইচ্ছে করে করা হয়েছে। ইচ্ছে করে নারীবাদী সার্কেলের বাইরে থাকা জন্মগতভাবে পুরুষ ‘যৌনহেনস্থাকারী’দের বাদ দেওয়া হয়েছে। শুধু নামের একটা ‘লিস্ট’ দেওয়া এবং হেনস্থার বিবরণ না দেওয়া, প্রকাশ্যে, তাতে ‘অপরাধী’ অপরাধ-কে আড়াল করে। যেটা একটা মৌলিক ভ্রান্তি। কিন্তু এতদসত্ত্বেও, আমি ক্যাম্পেন-টাকেই তুলে নিতে আবেদন করব? দূরত্ব তৈরি করা, নির্মম সমালোচনা করা এক জিনিস, ক্যাম্পেন-টাকেই তুলে নিতে বলা সম্পূর্ণ অন্য জিনিস।

যাই হোক, এসব নারীবাদী আন্দোলনের ভেতরের বিবাদ। তারা নিজেদের মধ্যে মারপিট না করে মিটিয়ে নিতে পারলেই ভালো। মানুষকে মানুষ করার জন্য নারীবাদী আন্দোলনের দরকার ফুরিয়ে যায়নি।

আমার এ প্রসঙ্গে অন্য একটা জিনিস নিয়ে বলার আছে। এই পোড় খাওয়া ব্যাপারটা নিয়ে। মানে কোনো আন্দোলনের পোড় খাওয়া কর্মী নিয়ে। দীর্ঘদিনের কর্মী নিয়ে। দীর্ঘদিনের একনিষ্ট (ডেডিকেটেড) কর্মী নিয়ে। ‘লিস্ট’ করিয়ে ‘ইয়ং’ নারীবাদী মেয়েরা পোড় খাওয়া দীর্ঘদিনের নারীবাদী কর্মীদের বলেছে ‘মাসি নারীবাদী’। একে ‘ডিমিনিং এজেইজম’ বা হীন বয়সবাদ বলে সমালোচনা করেছে নারীবাদী কর্মীরা। শুধু কী তাই? লোকে কি শুধুই বয়স দেখে এই কথা বলে? নিশ্চয়ই তার রূপ-টা বয়স, সে জন্যই বয়সের কথা ওঠে। কিন্তু আসল টার্গেট কী? আমি ১৭ বছর বয়স থেকে যাদবপুরে ছাত্র আন্দোলন করতাম, একনিষ্টভাবে। ২২ বছর বয়সে যাদবপুরে ছাত্র আন্দোলনের মধ্যে থেকে আমাকে ‘দাদু’ বলে ডেকেছিল কেউ কেউ। ২৩ এর মধ্যে আমি যাদবপুর তথা সাধারণভাবে ছাত্র আন্দোলন থেকে সরে যাই, আর ওই চৌকাঠ মাড়াইনি। আন্দোলনের মধ্যে থেকে ‘দাদু’ বা ‘মাসি’ ডাকের বাহিরটা সরিয়ে যদি ভেতরদিকে তাকানো যায়, তাহলে দেখা যাবে, আসল টার্গেট, হ্যাঁ, যেগুলো নিয়ে গর্ব করা হয়, সেগুলো, ‘দীর্ঘদিনের’, ‘পোড় খাওয়া’, ‘একনিষ্ট’।

দীর্ঘদিন কিছু করা কি ভালো? পোড় খাওয়া মানে কী? চামড়া মোটা হয়ে যাওয়া, অনুভূতিগুলো অসাড় হয়ে যাওয়া, নয় কি? একনিষ্ট বা ডেডিকেটেড কি শিহরিত হয় অজানা ভবিষ্যতের জন্য? যে ভবিষ্যত জানা তা কি আদৌ ভবিষ্যত? নাকি তা অতীতের এক্সটেনশন? যার ভবিষ্যত নেই তার কি আদৌ বর্তমান আছে? বর্তমান কি আদৌ অতীতের অংশ, নাকি অতীতের অন্ত? শুরু না থাকলে অন্ত হবে কী করে? কীভাবে শুরু করা যায়? কীভাবে বার বার শুরু করা যায়? কীভাবে শুরুর পুনরাবৃত্তি করা যায়?

গতকাল ফারাকের দর্শনের প্রথম ক্লাসটা হলো আমাদের বাড়িতে। দর্শনে শুরু করা হবে কী করে? আদৌ কি শুরু করা যায়? এইটাই ছিল প্রথম ক্লাসের বিষয়। আমি কোনোদিন ক্লাসই নিইনি, এইসব ক্লাস তো নয়ই। ফলে কতদূর কী হলো কে জানে! যাই হোক। নিচে অডিও ফাইলটা রইল। জনগণের জন্য। যারা আসতে চেয়েও নানা কারণে আসতে পারেনি তাদের জন্য। এই ক্লাসের নোটটার লিঙ্কও রইল। এর পরের শনিবারেই পরের ক্লাসটা হবে না। তবে দুই বা তিন বা চার সপ্তাহ পরের শনিবার বিকেল ৬-৮ টার স্লটেই হবে। পরে জানিয়ে দেব। যারা এসেছিল এবং যারা আসতে চায়, সবার সঙ্গে কথা বলে বেশিরভাগের সুবিধা অনুযায়ী দিন ঠিক করে। এবং বিষয়টাও জানিয়ে দেব।

কেউ যদি ওপরের স্নিপেটে শুনতে না পান বা কিছুক্ষণ পরে শেষ হয়ে যায়, তাহলে মূল অডিও ফাইলটা নিচের লিঙ্কটা ব্রাউজারে কপি পেস্ট করে ডাউনলোড করে দিতে পারেন। ১ ঘন্টা ৩৪ মিনিটের অডিও ক্লিপ।

<<https://archive.org/download/faraker-dorshon-class/faraker-dorshon-class-1-shuruyat.ogg

আর নিচে ক্লাসের নোটের লিঙ্কটা রইল।

https://ontorlin.wordpress.com/2016/03/28/%e0%a6%ab%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a6%be%e0%a6%95%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%a6%e0%a6%b0%e0%a7%8d%e0%a6%b6%e0%a6%a8%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%a8%e0%a7%8b%e0%a6%9f-%e0%a7%a8-%e0%a6%a6%e0%a6%b0%e0%a7%8d/

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s